প্রেমের কবিতা Skip to main content

Posts

উত্তর - কবিতা | শামসুর রাহমান

তুমি হে সুন্দরীতমা নীলিমার দিকে তাকিয়ে বলতেই পারো ‘এই আকাশ আমার’ কিন্তু নীল আকাশ কোনো উত্তর দেবেনা। সন্ধ্যেবেলা ক্যামেলিয়া হাতে নিয়ে বলতেই পারো, ‘ফুল তুই আমার’ তবু ফুল থাকবে নীরব নিজের সৌরভে আচ্ছন্ন হয়ে। জ্যোত্স্না লুটিয়ে পড়লে তোমার ঘরে, তোমার বলার অধিকার আছে, ‘এ জ্যোত্স্না আমার’ কিন্তু চাঁদিনী থাকবে নিরুত্তর। মানুষ আমি, আমার চোখে চোখ রেখে যদি বলো, ‘তুমি একান্ত আমার’, কী করে থাকবো নির্বাক ? তারায় তারায় রটিয়ে দেবো, ‘আমি তোমার, তুমি আমার’। কবিতাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

যাকে চেয়েছিলাম - কবিতা | শক্তি চট্টোপাধ্যায়

যাকে চেয়েছিলাম তাকে পেলাম না যে-ঘাট ছাড়ে নৌকা তাতে গেলাম না, কপাল আমার মন্দ তাতে সন্দেহ কি চোখ বুজলে প্রিয় কেবল তোমায় দেখি। ফুলগাছে জল দিলাম তাতে ধরেছে ফল যে-ঘরে পৌঁছুলাম দেখি ভাঙ্গা আগল, অমূল্য রাখবো না বলেই গেলাম না যাকে চেয়েছিলাম তাকে পেলাম না। সারা জীবন সন্ধ্যে-সকাল করেও ফাঁকি কপাল আমার মন্দ তাতে সন্দেহ কি, প্রিয়কে পথ দিয়েও বুঝি দিলাম না যাকে চেয়েছিলাম তাকে পেলাম না। কবিতাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

যাতায়াত - কবিতা | হেলাল হাফিজ

কেউ জানে না আমার কেন এমন হলো। কেন আমার দিন কাটে না রাত কাটে না রাত কাটে তো ভোর দেখি না কেন আমার হাতের মাঝে হাত থাকে না কেউ জানেনা। নষ্ট রাখীর কষ্ট নিয়ে অতোটা পথ একলা এলাম। পেছন থেকে কেউ বলেনি করুণ পথিক দুপুর রোদে গাছের নিচে একটু বসে জিরিয়ে নিও, কেউ বলেনি ভালো থেকো সুখেই থেকো। যুগল চোখে জলের ভাষায় আসার সময় কেউ বলেনি, মাথার কসম আবার এসো। জন্মাবধি ভেতরে এক রঙিন পাখি কেঁদেই গেলো শুনলো না কেউ ধ্রুপদী ডাক। চৈত্রাগুনে জ্বলে গেলো আমার বুকের গেরস্থালি, বললো না কেউ তরুন তাপস এই নে চারু শীতল কলস, লন্ডভন্ড হয়ে গেলাম তবু এলাম। ক্যাঙ্গারু তার শাবক নিয়ে যেমন করে বিপদ পেরোয়, আমিও ঠিক তেমনি করে সভ্যতা আর শুভ্রতাকে বুকে নিয়েই দুঃসময়ে এতোটা পথ একলা এলাম শুশ্রূষাহীন, কেউ ডাকেনি তবু এলাম, বলতে এলাম ভালোবাসি। কবিতাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

কতোটুকু বিষ রেখেছো প্রেমের পাশে - রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ

হে কিশোরী কবোষ্ণ বুকের চুড়োয় কতোটুকু প্রেম রেখেছো লালন কোরে কতোটুকু মান অভিমান! সঞ্চয়ী এক চাষীর মতো কতোটা বীজ জমিয়েছো হংসমিথুন মৌশুম তো এসেই গেছে হে কিশোরী কতোটুকু প্রেম রেখেছো! কোমল হাতের ঐ আঙুলে কতোটুকু স্নেহের পরশ আলতো লাজুক রেখেছো হে চোখের ভেতর গভীরতায় কতোটুকু সুখ রেখেছো! ঢেউয়ের মতো ক্রমান্বয়ে দেখেছো ঐ বুকের কিরীট যাচ্ছে বেড়েই এর ভেতরে কতোখানি ঘুম রেখেছো মিথুন রাতের স্বপ্নালু সুখ! হে কিশোরী ঠোঁটের শাখায় কোন সোনালি ফুলের মধু জমিয়েছো কোন চুমুকের আশায় তুমি ঠোঁটের পাপড়ি ব্যগ্র অমন মেলেই আছো! হে কিশোরী বুকের ভেতর কতোটুকু বিষ রেখেছো আড়াল কোরে সোনালী ঐ প্রেমের পাশে ! কবিতাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

প্রস্থান - হেলাল হাফিজ | কবিতা

এখন তুমি কোথায় আছো কেমন আছো, পত্র দিয়ো৷ এক বিকেলে মেলায় কেনা খামখেয়ালী তাল পাখাটা খুব নিশীথে তোমার হাতে কেমন আছে, পত্র দিয়ো৷ ক্যালেন্ডারের কোন পাতাটা আমার মতো খুব ব্যথিত ডাগর চোখে তাকিয়ে থাকে তোমার দিকে, পত্র দিয়ো৷ কোন কথাটা অষ্টপ্রহর কেবল বাজে মনের কানে কোন স্মৃতিটা উস্কানি দেয় ভাসতে বলে প্রেমের বানে পত্র দিয়ো,পত্র দিয়ো৷ আর না হলে যত্ন করে ভুলেই যেয়ো, আপত্তি নেই৷ গিয়ে থাকলে আমার গেছে, কার কী তাতে? আমি না হয় ভালোবেসেই ভুল করেছি ভুল করেছি, নষ্ট ফুলের পরাগ মেখে পাঁচ দুপুরের নির্জনতা খুন করেছি, কী আসে যায়? এক জীবনে কতোটা আর নষ্ট হবে, এক মানবী কতোটা আর কষ্ট দেবে! কবিতাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

ভালোবাসার সংজ্ঞা - রফিক আজাদ

ভালোবাসা মানে দুজনের পাগলামি, পরস্পরকে হৃদয়ের কাছে টানা; ভালোবাসা মানে জীবনের ঝুঁকি নেয়া, বিরহ-বালুতে খালিপায়ে হাঁটাহাঁটি; ভালোবাসা মানে একে অপরের প্রতি খুব করে ঝুঁকে থাকা; ভালোবাসা মানে ব্যাপক বৃষ্টি, বৃষ্টির একটানা ভিতরে-বাহিরে দুজনের হেঁটে যাওয়া; ভালোবাসা মানে ঠাণ্ডা কফির পেয়ালা সামনে অবিরল কথা বলা; ভালোবাসা মানে শেষ হয়ে-যাওয়া কথার পরেও মুখোমুখি বসে থাকা। কবিতাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন

সাহস থেকে প্রেম - নির্মলেন্দু গুণ

আমার শুধু ইচ্ছে করে সঙ্গে বসে থাকি। হঠাৎ করে তোমার গায়ে গোপনে হাত রাখি। রাখতে রাখতে সাহস হবে সাহস থেকে প্রেম, বুঝবে আমি শিকড়গুলো কিভাবে ছড়ালেম। আমার শুধু ইচ্ছে করে সঙ্গে ভেসে যেতে, ভাসতে ভাসতে সবটা নদী বুকের কাছে পেতে। এমনি করেই সাহস হবে সাহস থেকে প্রেম, তখন তুমি বুঝবে না যে কিভাবে জড়ালেম। কবিতাটি ভালো লাগলে শেয়ার করবেন