বধূ বরণ - কাজী নজরুল ইসলাম | স্বামী স্ত্রীর কবিতা Skip to main content

বধূ বরণ - কাজী নজরুল ইসলাম | স্বামী স্ত্রীর কবিতা

bodhu-boron-kazi-nazrul-islam-shami-stri-kobita

এতদিন ছিলে ভুবনের তুমি 
আজ ধরা দিলে ভবনে, 
নেমে এলে আজ ধরার ধুলাতে 
ছিলে এতদিন স্বপনে! 
শুধু শোভাময়ী ছিলে এত দিন 
কবির মানসে কলিকা নলিন, 
আজ পরশিলে চিত্ত- পুলিন 
বিদায় গোধূলি- লগনে। 
ঊষার ললাট- সিন্দুর- টিপ 
সিথিঁতে উড়াল পবনে।। 

প্রভাতে ঊষা কুমারী, সেজেছে 
সন্ধ্যায় বধূ ঊষসী, 
চন্দন- টোপা- তারা- কলঙ্কে 
ভ'রেছে বে-দাগ- মু'শশী। 
মুখর মুখ আর বাচাল নয়ন 
লাজ সুখে আজ যাচে গুন্ঠন, 
নোটন- কপোতি কন্ঠে এখন 
কূজন উঠিছে উছসি'। 
এতদিন ছিলে শুধু রূপ- কথা, 
আজ হলে বধূ রূপসী।। 

দোলা চঞ্চল ছিল এই গেহ 
তব লটপট বেণী ঘা'য়, 
তারি সঞ্চিত আনন্দে ঝলে 
ঐ ঊর- হার মনিকায়। 
এ ঘরের হাসি নিয়ে যাও চোখে, 
সে গৃহ- দ্বীপ জ্বেলো এ আলোকে, 
চোখের সলিল থাকুক এ-লোকে- 
আজি এ মিলন মোহানায় 
ও- ঘরের হাসি বাশিঁর বেহাগ 
কাঁদুক এ ঘরে সাহানায়।। 

বিবাহের রঙ্গে রাঙ্গা আজ সব, 
রাঙ্গা মন, রাঙ্গা আভরণ, 
বলো নারী- 'এই রক্ত- আলোকে 
আজ মম নব জাগরণ!' 
পাপে নয় পতি পুণ্যে সুমতি 
থাকে যেন, হ'ইয়ো পতির সারথি। 
পতি যদি হয় অন্ধ, হে সতী, 
বেঁধো না নয়নে আবরণ; 
অন্ধ পতিরে আঁখি দেয় যেন 
তোমার সত্য আচরণ।।

 ভালো লাগলে শেয়ার ও কমেন্ট করবেন 

নজরুলের সব প্রেমের কবিতা 👉 লিংক

Comments